সর্বশেষ

আসলাম সানীকে ঠেকাতে সাংসদ হুমায়ুনের কারসাজি

ই-বার্তা ।।  অাসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নরসিংদী-৪ (মনোহরদী-বেলাব) অাসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে বর্তমান সাংসদ নুরুল মজিদ হুমায়ুন ডামি প্রার্থী হিসেবে নিজের অনুসারী একাধিক অখ্যাত লোক দিয়ে দলীয় মনোনয়ন কিনিয়েছেন বলে জানা গেছে।

 

এসব ডামি প্রার্থী কোনদিন নির্বাচনী মাঠে ছিলেন না। কিন্তু হঠাৎ করে তারা দলীয় মনোনয়ন কেনার খবরে হতবাক হয়েছেন স্থানীয় অাওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

ড্যামি প্রার্থী হিসেবে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন- মোহাম্মদ আলী খান রিপন, মো: নাজমুল হক, মোস্তফা কামাল পাশা তাপস, রানা চৌধুরী, সাখাওয়াত হোসেন ভূইয়া খোকন।

নরসিংদী -৪ (বেলাব-মনোহরদী) আসনের অাওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা বলেন, অাসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে গণসংযোগসহ দলীয় কর্মকান্ডে দীর্ঘদিন ধরে মাঠে কাজ করে অাসছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক উপদেষ্টা অহিদুল হক আসলাম সানী। মূলত, তাকে ঠেকাতে এইসব ডামি প্রাথীদের দিয়ে মনোনয়ন কিনিয়েছেন সাংসদ নূরুল মজিদ হুমায়ুন। নিজের অনুসারী হিসেবে পরিচিত এইসব ডামি প্রাথীর সমর্থন তার পক্ষে আছে, এমনটা দেখিয়ে নিজের মনোনয়ন নিশ্চিত করতে চাচ্ছেন হুমায়ুন।

এছাড়াও মনোহরদী উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম খান বীরু, জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ডা. আব্দুর রউফ সরদার, যুবলীগের উপশিক্ষা, প্রশিক্ষণ ও পাঠাগার সম্পাদক কাজী মো. মাজহারুল ইসলাম, মনোহরদী উপজেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্য কর্নেল (অব) আব্দুর রউফ বীর বিক্রম নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন।

আওয়ামী লীগের বর্তমান সংসদ সদস্য এডভোকেট নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুনকে বাদ দিয়ে প্রার্থী মনোনয়নে পরিবর্তনের দাবীতে সম্প্রতি একাট্টা হয়েছেন দলটির ৫ জন মনোনয়ন প্রত্যাশী।

সাংসদ নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুনের বিরুদ্ধে দলীয় নেতাকর্মীদের অবমূল্যায়ন, কমিটি বাণিজ্য, দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করা, এলাকার সার্বিক উন্নয়নে ভূমিকা না রাখা, জনবিচ্ছিন্নতাসহ নানা অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ। সম্প্রতি, বেলাবোতে এক বিশাল জনসভায় এসব অভিযোগ তুলে ধরে আগামী নির্বাচনে পুণরায় হুমায়ুনকে মনোনয়ন না দিয়ে তৃণমূলের মতামতের ভিত্তিতে মনোনয়ন প্রদানের দাবী মনোনয়ন প্রত্যাশী পাচ নেতা।

 

আওয়ামী লীগ নেতারা জানান, এসব কারনে, নির্বাচনী এলাকার তৃণমূলে কোণঠাসা হয়ে পড়েন এমপি হুমায়ুন। এ অবস্থায়, অাসন্ন নির্বাচনকে ঘিরে এ অাসনে মনোনয়নপত্র ক্রয় করেছেন এক ডজনেরও বেশি লোক। এরমধ্যে প্রায় অর্ধেকের দলীয় পদ পদবী নেই, এমনকি তারা এলাকায়ও অপরিচিত মুখ বলে জানান এলাকাবাসী।

তৃণমূলের নেতাকর্মীরা জানান, নিজের প্রার্থীতা টিকিয়ে রাখতে এবার নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন এসব ড্যামি প্রার্থী দিয়ে থাকতে পারেন। এরমধ্যে দলের নেতাকর্মীরা না চিনলেও বেশ কয়েকজন অখ্যাত মুখ এমপির অনুসারি বলে গুঞ্জন উঠেছে। যারা এমপির মনোনয়ন টিকিয়ে রাখতে তাকে সমর্থন জানানোর মাধ্যমে নিজেদের অবস্থান শক্ত করার কৌশল নিয়েছেন। যদিও জননেত্রী শেখ হাসিনাসহ দলীয় হাইকমান্ড তৃণমূলে দলে কার কী অবস্থান জানেন বলে বিশ্বাস করেন তৃণমূলের নেতাকর্মীরা।

 

নরসিংদী-৪ (মনোহরদী-বেলাব) আসন কমপক্ষে ১২ জনের আওয়ামী লীগ দলীয় মনোনয়ন কেনার খবর পাওয়া গেছে। তারা হলেন, বর্তমান সাংসদ ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি অ্যাড. নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক উপদেষ্টা অহিদুল হক আসলাম সানী, মনোহরদী উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম খান বীরু, জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ডা. আব্দুর রউফ সরদার, যুবলীগের উপশিা, প্রশিণ ও পাঠাগার সম্পাদক কাজী মো. মাজহারুল ইসলাম, মনোহরদী উপজেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্য কর্নেল (অব) আব্দুর রউফ বীর বিক্রম, বেলাব উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক উপদেষ্টা মোহাম্মদ আলী খান রিপন, অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী ড. রইছ উদ্দিন, মো: নাজমুল হক, মোস্তফা কামাল পাশা তাপস, রানা চৌধুরী, সাখাওয়াত হোসেন ভূইয়া খোকন।

 

 

 

 

ই-বার্তা / আ সা