সর্বশেষ

ক্লান্তি কাটাতে যা খাবেন

ডেস্ক রিপোর্ট।।  ক্লান্তি কাটাতে কফির কাপে চুমুক দেই আমরা অনেকেই। সত্যিই কি কফি ক্লান্তি কাটাতে সাহায্য করে? হ্যাঁ, শরীরের কর্মক্ষমতা বাড়াতে কফির বিকল্প হয় না।

 

পর্তুগালের পোর্তো ইউনিভার্সিটির গবেষকরা প্রায় ৩০০০ জন পুরুষ এবং মহিলা ডায়াবেটিক রোগীর উপর টানা ১১ বছর গবেষণা চালিয়ে দেখেছিলেন তাদের শরীরে ক্যাফেইন প্রবেশ করার পর এমন কিছু ঘটে, যার প্রভাবে মৃত্যুহার প্রায় ৫১-৫৭ শতাংশ হ্রাস পায়। তবে ভাববেন না শুধু ডায়াবেটিস রোগকে নিয়ন্ত্রণে রাখতেই কফি বিশেষ ভূমিকা নেয়। আরও একাধিক মারণ রোগের প্রকোপ কমাতেও কফির জুড়ি মেলা ভার।নিয়মিত ২ কাপ করে কফি খাওয়া শুরু করলে পেশীর ক্ষমতা এততটাই বৃদ্ধি পায় যে, যেকোনো ধরনের ব্যথা কমে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রায় ৪৮ শতাংশ বৃদ্ধি পায়। তবে ভুলেও দৈনিক ২-৩ কাপের বেশি কফি খাবেন না যেন। কারণ শরীরে বেশি মাত্রায় ক্যাফিন প্রবেশ করলে কিন্তু বিপদ!ডায়াবেটিস রোগকে নিয়ন্ত্রণে রাখার মধ্যে দিয়ে সার্বিকভাবে শরীরের উন্নতিতে কফির কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে। শুধু তাই নয়, গবেষণা বলছে যারা নিয়মিত কফি পান করেন, তাদের টাইপ-২ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা ৫০-৬৭ শতাংশ কমে যায়।কফিতে থাকা ক্যাফেইন শরীরে প্রবেশ করার পর তা অ্যাডেনোসাইন নামে একটি নিউরোট্রান্সমিটারের কাজ করার ক্ষমতা কমিয়ে দেয়। সেইসঙ্গে ডোপামাইন নামক ফিলগুড হরমোনের ক্ষরণ বেড়ে যায়। ফলে শরীর চনমনে হয়ে উঠতে শুরু করে। সেইসঙ্গে এনার্জির ঘাটতিও দূর হয়।প্রতিদিন নিয়ম করে ২-৩ কাপ কফি পান করলে নানাবিধ লিভার ডিজিজে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা প্রায় শূন্যে এসে দাঁড়ায়। সেই সঙ্গে লিভারের কর্মক্ষমতা এতটা বৃদ্ধি পায় যে সার্বিকভাবে শরীরের উন্নতি ঘটে।কফিতে উপস্থিত ক্যাফেইন শরীরে জমে থাকা অতিরিক্ত চর্বি গলিয়ে ফেলতে বিশেষভাবে সাহায্য করে থাকে। ক্যাফেইন আমাদের হজম ক্ষমতা বা মেটাবলিক রেট প্রায় ৩-১১ শতাংশ বাড়িয়ে দেয়।

 

ফলে মেদ ঝরার হার প্রায় ১০-২৯ শতাংশ বেড়ে যায়।ঘুম ঘুম ভাব কাটানোর পাশাপাশি কফি আমাদের শরীরে একাধিক পুষ্টিকর উপাদানের ঘাটতি দূর করতেও বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। কফি পান করলে শরীরে ভিটামিন বি২, ভিটামিন বি৫, পটাশিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়ামের ঘাটতি দূর হয়।নিয়মিত কফি পান করলে ব্রেন টিস্যুর কর্মক্ষমতা এতটা বৃদ্ধি পায় যে বুড়ো বয়সে গিয়ে অ্যালঝাইমারস বা ডিমেনশিয়ার মতো রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা চোখে পরার মতো কমে যায়।ক্যাফেইন রক্তে মেশার পর অ্যাড্রিনালিন হরমোনের ক্ষরণ মারাত্মক বেড়ে যায়। ফলে শরীরের পরিশ্রম করার ক্ষমতা বাড়তে শুরু করে।

 

 

 

ই-বার্তা।ডেস্ক