সর্বশেষ

একটি শিরোনামহীন ব্যান্ডের গল্প

শহরের কথা শুনলে একটা জনসমুদ্র চলে আসে চোখের সামনে। সেই জনসমুদ্রের কোলাহল ছাপিয়ে অশান্ত, ক্লান্ত পথে হেঁটে যাওয়া আমাদের চোখ কখনো আঁটকে যায় শহরের দেয়ালে নি:সঙ্গ একা বসে থাকা পাখিটার উপর, কখনো বদ্ধ জানালার ফাঁকে কিশোরীর হাসিমুখ আমাদের ক্লান্তির মাঝে খানিক’টা সুখের মূহুর্তের জন্ম দেয়। ব্রাদার চার্লসের চুইংগাম আর বাড়ি ফেরার শেষ বাসের গল্প শোনানো একটি শিরোনামহীন ব্যান্ডের গল্প বলবো আজ।

১৯৯৬ সালে জিয়া, জুয়েল এবং বুলবুলের হাত ধরে পথচলা শুরু করে আজকের শিরোনামহীন। টিএসসির বারান্দায় টেবিলের শব্দের সাথে গানগুলো তখন নতুন ঠিকানা পায়। শিরোনামহীন গানগুলো খুঁজে পায় শিরোনামহীনের ঠিকানা। ২০০০ সালে ব্যান্ডের সাথে ভোকাল হিসেবে যোগ দেন তানজির তুহিন। ২০১৭ সালে তানজির তুহিন ব্যান্ড লিভ করার পর ব্যান্ডটিতে ভোকাল হিসেবে নিজের নাম লেখান শেখ ইশতিয়াক। শিরনামহীনের সর্বশেষ সংযোজন কিবোডিস্ট সায়মন চৌধুরী। ব্যন্ড’টির বর্তমান লাইনআপে ভোকাল হিসেবে আছেন শেখ ইশতিয়াক, বেইজে আছেন জিয়াউর রহমান, গিটারে দিয়াত খান, ড্রামসে আহমেদ শাফিন এবং কীবোর্ডে আছেন সায়মন চৌধুরী। ২০০৪ সালে শিরোনামহীন তাদের প্রথম এলবাম জাহাজী রিলিজ করে। প্রথম এলবামে ছিলো ১০টি গান। জাহাজী শুনিয়েছে নদীর কথা, গেয়েছে এই শহরের গান। মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে থাকা গ্রেগরী’র ছেলেটা তার শিরোনামহীন স্বপ্ন নিয়ে হাসিমুখে হেঁটে চলেছে এই শহরের রাস্তায়। ২০০৬ সালে শিরোনামহীনের হাওয়ায় উড়েছিলো ইচ্ছেঘুড়ি। তারপর ২০০৯, ২০১০ এবং সর্বশেষ ২০১৩ সালে শিরোনামহীন তাদের বাকি তিনটি এলবাম রিলিজ করে। বদ্ধ জানালায় তখন শিরোনামহীন গান নিয়ে পূনজন্ম হয়েছিলো শিরোনামহীন রবীন্দ্রনাথের। নতুন লাইনআপে শিরোনামহীন রিলেজ দিয়েছে জাদুকর , বোহেমিয়ান, বারুদ সমুদ্রের মত ট্রাক। এই তিনটি গানের কথা , কম্পোজিশনে শিরোনামহীন রচনা করেছে পুরনো ভালোবাসার নতুন উপন্যাস। মানুষের হারানোর ভয়ে ভরসা জুগিয়েছে নতুনত্বের গল্প। বর্তমান লাইনআপে শীঘ্রই শিরোনামহীন তাদের নতুন এলবাম রিলিজ করবে।

শুরু থেকে এখন পর্যন্ত পুরো শিরোনামহীন গল্প’টাই বিস্ময়ের, শিরোনামহীন ভালোবাসার। শুভ্র রঙ্গীন বিকেলে নিশ্চুপ আঁধারে এখনো সময়ে অসময়ে শিরোনামহীন হানা দেয় আমাদের রুপসী নগরে। কখনো পাখি হয়ে , কখনো পরী হয়ে তার জাদুর কাঠিতে আবার কখনো ইচ্ছে ঘুড়ির বেশে অপ্সরীর ছাদে। ভবঘুরে ঝড় হয়ে কিশোরীর শিরোনামহীন হাসি’তে লুকিয়ে থাকে লাল নীল গল্প। নস্টালজিক বিকেলে আমাদের অলস শরীর’কে ক্যাফেটেরিয়ায় ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া একটি শিরোনামহীন ব্যান্ডের গল্প এভাবেই হয়তো চলতে থাকবে। হয়তো মাঝপথে পথ হারিয়ে ফেলা বন্ধুদের সাথে শিরোনামহীনের, আবার হবে দেখা,তাদের এই অচিন নগরে।

ই-বার্তা/ মাহারুশ  হাসান