ডাকসু নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু

ই-বার্তা ডেস্ক।।  গতকাল সোমবার থেকে শুরু হয়েছে আসন্ন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক প্রচারণা।  নির্বাচনী সমস্ত প্রক্রিয়া শেষে প্রার্থীরা এখন ভোটের মাঠে। প্রার্থীদের নিজস্ব প্যানেল এবং ব্যক্তিগত ইশতেহার নিয়ে ভোটারদের সামনে উপস্থিত হচ্ছেন তারা।

ক্ষমতাসীন ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগ, জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল, বামজোট এবং  বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদসহ ক্যাম্পাসের সব ক্রিয়াশীল সংগঠন ডাকসু ও হল সংসদে প্যানেল দিয়েছে।  এর বাইরে একাধিক স্বতন্ত্র জোটসহ আছে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা।  সব মিলিয়ে ডাকসু নির্বাচনকে ঘিরে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে উত্সব মুখর পরিবেশ বিরাজ করছে।  

ছাত্র সংগঠনগুলোর ইশতেহার পর্যালোচনা করে দেখা যায় প্রায় প্রতিটি সংগঠনের ইশতেহারেই সাধারণ শিক্ষার্থীদের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় এবং তাদের অধিকার নিশ্চিত করার প্রতিশ্রুতিকেই সর্বাধিক গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। 

ছাত্রলীগের ইশতেহারে শিক্ষার্থীদের জন্য হলে মেধাভিত্তিক সিট বণ্টন, ক্যান্টিনে মানসম্মত খাবার নিশ্চিতকরণ, হলে হলে প্রাথমিক চিকিত্সার ব্যবস্থা, ক্যাম্পাসে রিকশা ভাড়া নির্ধারণ ও গণপরিবহন নিয়ন্ত্রণ ইত্যাদি বিষয়গুলোকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। নির্বাচিত হলে এই ইশতেহার কতটুকু বাস্তবায়ন করা হবে সে বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের মনোনীত প্যানেলের স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক পদপ্রার্থী সাদ বিন কাদের সাংবাদিকদের বলেন, ডাকসু নির্বাচন একটা আনুষ্ঠানিকতা মাত্র।  সাধারণ শিক্ষার্থীদের যেকোন সমস্যায় ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ অতীতেও ছিল ভবিষ্যতেও থাকবে।  এছাড়া এক বছরে শিক্ষার্থীদের জন্য যতটুকু কাজ করবো তার ভিত্তিতেই তো পরবর্তী বছর ভোট চাইতে হবে।  

অন্যদিকে ছাত্রদল আনুষ্ঠানিক কোন ইশতেহার এখনো ঘোষণা না করলেও শিক্ষার্থীদের একটি শঙ্কামুক্ত, নিরাপদ ও শিক্ষার্থীবান্ধব গণতান্ত্রিক ক্যাম্পাস বিনির্মাণের আশ্বাস দিচ্ছে। 

বামজোট এবং অন্য স্বতন্ত্র প্রার্থীরা তাদের ইশতেহারে সাধারণ শিক্ষার্থীদের জন্য যেসব প্রতিশ্রুতি দিয়েছে তার মধ্যে সমগ্র ক্যাম্পাসকে উন্মুক্ত ইন্টারনেট সেবার আওতায় আনা, বেদখল হয়ে যাওয়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব জমি পুনরুদ্ধার করে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের আবাসন নিশ্চিত করা, ২৪ ঘণ্টা লাইব্রেরি খোলা রাখা ইত্যাদি।

ই-বার্তা/মোঃ সালাউদ্দিন সাজু