সর্বশেষ

নিজেদের হারিয়ে খোঁজা একটি প্রজন্ম

ই-বার্তা ডেস্ক।।   আমরা এমন একটা সময়ে বড় হয়েছি যখন আর্টসেল নিয়ে স্বপ্ন দেখা যেত। একটি এলবামের স্বপ্ন, অতৃতীয়ের স্বপ্ন। লিংকন’দা বলেছিলেন, ” তোমরা ঈদে গরু খেতে খেতে অতৃতীয় শুনবা”। আমরাও আশার আকাশ দেখেছিলাম। একটা এলবাম উন্মোচন অনুষ্ঠানের স্বপ্ন দেখেছিলাম। যেখানে আমরা থাকবো, আমাদের বন্ধুরা থাকবে, আর্টসেল থাকবে, দেশের হাজার হাজার আর্টসেল আর্মি থাকবে। আমরা একসাথে অনিকেত প্রান্তর গাইবো, অন্যসময়ের মাঝে নিজেদের হারাবো। এখন আর কোন স্বপ্ন নেই, আর্টসেল হারিয়ে যাচ্ছে, আমরাও নিজেদের একটা সত্ত্বা বিসর্জন দিচ্ছি।

আমি ভাইব এর নস্টালজিয়ায় আমার বড়ভাইদের ডুবতে দেখেছি। অধরা শুনে আনমনে বসে থাকতে দেখেছি। কিন্তু এখন ভাইব নেই। অনি ভাই নেই, শুদ্ধ ভাই নেই। আমরা এখন সর্বশান্ত, বড় ক্লান্ত। আমাদের পথেরও কোন শেষ নেই। স্বপ্নদেব এখন আমাদের স্বপ্ন দেখায় না। আমরা এখন আর শীতলক্ষ্যার তীরে যাওয়ার স্বপ্ন দেখি না। সব হারিয়েছে হারানোর দলে।

স্টয়িক ব্লিস ফিরেছে। ফেরেনি আগের এসিড, আগের কাজী। ফেরেনি মায়াবী চোখ, আবার জিগায়, এইজে আমি, ফেরেনি রক্তিম সিংহাসন। ১০ বছর পর ফিরে শুধু হতাশই করেছে তারা। মনে হয়েছে, না ফেরাটাই হয়তো ভালো ছিলো। আগের স্মৃতি , ফ্যান্টাসি আর সম্মান নিয়েই হয়তো কাটিয়ে দিতাম বাকিটা সময়।

ওয়াটসন ব্রাদারস হারিয়েছে, সাথে আমরা হারিয়েছি আকাশ’কে। তাকে আজ জিজ্ঞেস করা হয়না, “তোমায় রাঙ্গায় কে?”

ডিফাই হারানোর পর সেই নৌকা এখন আর পাহাড়তলি যায় না। সময়ে অসময়ে নিজেকে কারাবন্দী ভাবা হয়না।

তাদের হারানোর ভীড়ে হারিয়ে গেছে একটা প্রজন্ম, হাজার হাজার স্বপ্ন। আমরা যাদের নিয়ে স্বপ্ন দেখতাম তারা আর ফিরে আসবে না। কখনোই আসবে না। ধন্যবাদ, স্বপ্ন দেখিয়ে স্বপ্ন ভাঙ্গার জন্য। হয়তো এভাবে একদিন আমরাও হারিয়ে যাবো। মোড়ে মোড়ে কিশোরের গায়ে আর আর্টসেলের টিশার্ট থাকবে না, প্রতি লং জার্নিতে আমরাও হয়তো অনিকেত প্রান্তর শুনে রাস্তা মাপবো না। সবকিছুর’ই সমাপ্তি থাকে, তেমনই হয়তো সমাপ্তি হবে একটা অধ্যায়ের,একটা প্রজন্মর।

ভালো থাকুক ভালো সময়, ভালো থাকুক আমাদের ভালো সময়ের জন্ম দেয়া মানুষগুলো।

ই-বার্তা/ মাহারুশ হাসান